About Us

প্রফেসর মনসুর আহমেদ, অত্যন্ত মনোযোগসহকারে পাই ল্যাবস থেকে আসা প্রপোজাল লেটারটি পড়ছেন। তাঁর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে পাই ল্যাবস – এর Research Collaboration এর কথা বলা হয়েছে চিঠিতে। প্রফেসর মনসুর ভাবলেন, ভালই তো! তিনি অনুভব করেন, ইউনিভার্সিটির প্রধান কাজই গবেষণা করে জ্ঞানের উন্মেষ ঘটানো, আর সেটা যদি হয় বাস্তব অভিজ্ঞতালব্ধ অর্থাৎ ইন্ডাস্ট্রি ইনভলভ গবেষণা তাহলে সেটাকে সাধুবাদ জানাতেই হয়। আমাদের দেশে এধরণের উদ্যোগ একদম নেই বলেই চলে। সবচেয়ে সুখের বিষয় হচ্ছে, চিঠিটি পড়ে তিনি জানতে পারলেন এই প্রতিষ্ঠানটিই বাংলাদেশে প্রথম ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (EVM) আবিষ্কার করে। যেটা কিনা ‘বাংলাদেশ ইলেকশন কমিশন’ ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি স্থানীয় নির্বাচনে সফলতার সাথে ব্যাবহারও করেছে। অদ্ভুদ এবং একই সাথে আনন্দের বিষয় যেটা ছিল চিঠিতে সেটা হলো, বর্তমানে প্রতিযোগিতার বাজারে যেখানে সিংহভাগ প্রতিষ্ঠানই ব্যস্ত মুনাফা ক্রএ পুঁজিবাদী সমাজ ব্যাবস্থাকে চাঙা করায়, সেখানে এই প্রতিষ্ঠানের মুনাফার শত ভাগই দেশের কল্যাণে বা সাধারণ মানুষের সমস্যা সমাধানকল্পে বিভিন্ন প্রোজেক্টের গবেষণার কাজে ব্যবহার করা হয়।
গবেষণার প্রসার যদি এভাবে ঘটতে থাকে এবং অন্যন্য প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানগুলো যদি এভাবে চিন্তা করা শুরু করে তবে সত্যিই অনেক ভাল কিছু হবে, সেটাকে যদি দেশ এগিয়ে যাওয়া বলে তবে বলতে হয়, দেশ এগিয়ে যাবে। হঠাৎ মনসুর আহমেদ – এর চোখ আটকে গেল “পাই” শব্দটায়। ‘পাই’ এর মান যেমন অসীম, দেশকে নিয়ে আমাদের স্বপ্নও কোনো সীমায় বেঁধে দেওয়া সম্ভব নয়; স্বপ্ন সর্বদা অসীমেরই প্রতিনিধিত্ব করে। ভাবতে ভাবতে প্রফেসর মনসুর আহমেদ পুলক বোধ করলেন। স্বপ্ন বুঝি এভাবে ছড়িয়ে যায়, এক থেকে অন্যে…

 


সীমার মাঝে অসীমেরে খুঁজি… পাই ল্যাবস বাঙলাদেশ মাইক্রোকন্ট্রোলার বেজইড ডিভাইস ডিজাইন ও ডেভলপমেন্ট, বিভিন্ন ইলেক্ট্রো-মেকানিকাল প্রোজেক্ট ও রোবটিক্স নিয়ে গবেষণা করে থাকে। এছাড়াও তথ্য-প্রযুক্তির অন্যান্য ক্ষেত্রগুলোতে ধারাবাহিক গবেষণার প্রসারের লক্ষ্যে কাজ করার চেষ্টা করে যাচ্ছে। মূলত দেশের গবেষণা খাতকে সমৃদ্ধ করা এবং গবেষণার নতুন নতুন দাড় উন্মোচন করাই পাই ল্যাবসের প্রধান উদ্দেশ্য এবং সে প্রয়াসেই নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে নিরন্তর…